1. munnanews@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
  2. badal.satvnews@gmail.com : Badal Saha : Badal Saha
  3. jmmasud24@gmail.com : Mozammel Hossain Munna : Mozammel Hossain Munna
গোপালগঞ্জ-টেকেরহাট আঞ্চলিক সড়কটির দরপত্র প্রক্রিয়া ৮মাস আগে শেষ হলেও নিয়োগ হয়নি ঠিকাদার | Dainik Mohona
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:২৯ অপরাহ্ন
নোটিশ :
দৈনিক মোহনা পত্রিকার অনলাইন ভার্সনে আপনাদের স্বাগতম। করোনা ভাইরাস রোধে নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার রাখুন, বাইরে গেলে মাস্ক ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।

গোপালগঞ্জ-টেকেরহাট আঞ্চলিক সড়কটির দরপত্র প্রক্রিয়া ৮মাস আগে শেষ হলেও নিয়োগ হয়নি ঠিকাদার

  • ..............প্রকাশিত : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১২৭ জন সংবাদটি পড়েছেন।

স্টাফ রিপোর্টার।।

দীর্ঘ ৮মাস আগে সম্পন্ন হয়েছে দরপত্র প্রক্রিয়া। কিন্তু এখন পর্যন্ত সড়ক বিভাগ নিয়োগ দিতে পারেনি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। দীর্ঘদিন অবহেলায় পড়ে থাকা গোপালগঞ্জ-টেকেরহাট আঞ্চলিক সড়কের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে খানা-খন্দ ও গর্তের। এতে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে সড়কটি।দূর্ভোগ লাঘবে দ্রুত উন্নয়ন কাজ শুরু করার দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী।কর্তৃপক্ষ বলছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিয়োগ হলেই কাজ শুরু করা সম্ভব হবে।

টেকেরহাট থেকে গোপালগঞ্জ শহর পযর্ন্ত সড়কটির দৈর্ঘ্য ৪৪ কিলোমিটার। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে সড়কটি। সৃস্টি হয়েছে খানা খন্দের।এরই মধ্যে সড়কটি আঞ্চলিক সড়ক থেকে মহাসড়কে উন্নয়ন করতে ২০২০ সালের জুন মাসে একনেকে পাশ করা হয় একটি প্রকল্প। ৬টি প্যকেজের মাধ্যমে প্রকল্পটিতে ৬১২ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।

ওই বছরের নভেম্বরে প্রকল্প পরিচালক নিয়োগ এবং চলতি বছরের ২৪ জানুয়ারী দরপত্র আহবান করা হয়।ইতোমধ্যে দরপত্র প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সড়কের দুই পাশের গাছ সরিয়ে নিয়েছে বন বিভাগ।কিন্তু সড়ক সম্প্রসারনের কাজ এখনও শুরু হয়নি।এদিকে,সড়কে যানবাহন চলাচল সাভাবিক রাখতে সৃষ্টি হওয়া গর্ত মেরামত করছে সড়ক বিভাগ।

গঙ্গারামপুর গ্রামের পাট ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম বলেন, বেশ কয়েক বছর হলো টেকেরহাট-গোপালগঞ্জ সড়কে বড় কোন মেরামত কাজ হয়না। এই কারনে রাস্তার অীধকাংশ জায়গায় খানা খন্দর তৈরী হয়েছে। রাস্তার উপরের অংশ প্রায় উঠে গেছে। গুদামে মালামাল আনতে খুব সমস্যা পোহাতে হয় খরচও বেশী লাগে। তাই সড়কটি সংস্কারের দাবী জানাচ্ছি।

শুধু নজরুল ইসলাম ও মিন্টু বৈরাগীই নয়, কথা হয় জলিরপাড় গ্রামের নিতিশ তালুকদার, প্রবীর শীল, বানিয়ারচর গ্রামের বাসিন্দা ও ভ্যান চালক কৃষ্ণ হালদার, ব্যবসায়ী বিনয় বাইন, সবজি বিক্রেতা সদানন্দ বালা, পান বিড়ির দোকানদার নির্মল মন্ডল, চা ব্যবসায়ী সুব্রত বাড়ৈ, ভ্যান চালক অনন্ত মজুমদার, শংকর দাস ও জলিরপাড় ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড মেম্বার মুকন্দ বৈরাগীর সঙ্গে। তারা জানিয়েছেন, সড়কটি সম্প্রসারন হবে এটা শুনেছি। রাস্তা বাড়ানোর কথা বলে ৭/৮ বছর কোন মেরামত করা হচ্ছেনা এবং চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। আমাদের দাবী সড়কটি দ্রুত সম্প্রসারণ বা মেরামত করে  এলাকাবাসীর চলাচলের সুবিধা করে দেয়া হোক।

গোপালগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জাহিদ হোসেন জানান, প্রকল্পের মেয়াদ ২০২০ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের জুন পযর্ন্ত দুই বছর ধরা হয়েছে। দরপত্রে অংশগ্রহণকারী ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দাখিলকৃত দলিলাদি যাচাই বাছাই চলছে।এই কারনে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দিতে বিলম্ভ হচ্ছে।সড়কে যানবাহন চলাচল সাভাবিক রাখতে মেরামত কাজ চলমান রাখা হয়েছে এই কর্মকর্তা।

সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও সড়ক ও জনপথ গোপালগঞ্জ সার্কেলের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী তাপসী দাশ বলেন, আমরা ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দরপত্র গ্রহন করে ঠিকাদার মূল্যায়নের জন্য উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠিয়েছি। উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ঠিকাদার নিয়োগ দিলেই কাজ শুরু হবে।

ভোগান্তি লাঘবে ও ব্যবসা বাণিজ্যর প্রসার ঘটাতে দ্রুত সড়কটির উন্নয়ন কাজ শুরু করা হোক এমনটিই চাওয়া সাধারণ মানুষের।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020
Design & Developed By JM IT SOLUTION