আরও
    মূলপাতাUncategorizedটেকেরহাট-ঘোনাপাড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের নির্মাণ কাজে ধীরগতি

    টেকেরহাট-ঘোনাপাড়া আঞ্চলিক মহাসড়কের নির্মাণ কাজে ধীরগতি

    নানান জটিলতায় টেকেরহাট-গোপালগঞ্জ-ঘোনাপাড়া ৪৪কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের আঞ্চলিক মহাসড়কের কাজ চলে ঢিমেতালে।রাস্তাটি ভেঙ্গে ফেলে রাখায় সড়কটির বিভিন্ন স্থানে সৃস্টি হয়েছে খানাখন্দে। ধুলাবালিতে অন্ধকার হয়ে থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এ সড়কে চলাচলরতঃ যাত্রী সাধারণ।সড়কের বেশ কয়েকটি স্থানে স্থানীয় লোকজন বাধা সৃস্টি করায় ‍নির্মাণ কাজে দেরী হচ্ছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে(আগামী বছরের জুন মাসের)নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা জানিয়েছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ।

    ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক হওয়ার আগে গোপালগঞ্জের টেকেরহাট-গোপালগঞ্জ-ঘোনাপাড়া সড়কটি ছিল যাত্রী সাধারণের যাতায়াতের একমাত্র সড়ক।তখন সড়কটি আঞ্জলিক সড়ক ছিল।এই ৪৪ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের আঞ্চলিক সড়কটি এখন আঞ্চলিক মহাসড়কে রূপান্তর করে ৩৪ ফুট চওড়া করার কাজ চলছে।

    immage 1000 02 4

    রাস্তার বিভিন্ন স্থান ভেঙ্গে দীর্ঘদিন ফেলে রাখায় সেখানে বড় বড় গর্ত ও খানাখন্দের সৃস্টি হয়েছে।নির্মানাধীন রাস্তার কাজের ধীরগতি থাকায় সড়কে চলাচলকারী যাত্রী সাধারনের ভোগান্তি এখন চরমে পৌছেছে।

    সড়ক বিভাগ জানিয়েছে, ২০২০ সালের জুনে ৬’শ ১২ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে এ সড়কটি আঞ্চলিক মহাসড়কে উন্নীত করণের জন্য অনুমোন দেয় একনেক।কিন্তু,দরপত্র আহবানসহ নানা জটিলতার কারণে প্রকল্পের কাজ শুরু করতে বিলম্ব হয় এবং দুই বার মেয়াদ বাড়িয়ে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত করা হয়।সড়কটির বর্তমান প্রশস্থতা ধরা হয়েছে ৩৪ ফুট। ছয়টি গ্রুপে কাজটি শুরু হলেও ঢিলেঢালা ভাবে সড়কের কাজ করছে তিন চার পাঁচ ও ছয় নম্বর গ্রুপের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গুলো।

    immage 1000 03 3

    এছাড়া সড়কের ভেন্নাবাড়ি,চামটা, জলিরপাড় ও হরিদাসপুর এলাকায় জমির মালিকানা দাবী করে বাধার সৃস্টি করায় ওইসব স্থানে নির্মাণ কাজ বন্ধ রয়েছে। এসব জটিলতার কারনে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান গুলো কাজ বন্ধ রেখেছে। ফলে সড়কটির বিভিন্ন স্থানে খানাখন্দ আর বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় চলাচলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন পরিবহন চালক ও সড়কে চলাচলকারী যাত্রীরা।প্রতিদিনই ঘটছে কোন না কোন দূর্ঘটনা।বিশেষ করে রোগীদের পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ।

    গোপালগঞ্জ থেকে টেকেরহাট যেতে যেখানে সময় লাগার কথা ১ ঘন্টা সেখানে সময় লাগছে ২ থেকে আড়াই ঘন্টা। এছাড়া যাত্রী ও পন্য পরিবহনে বেগ পেতে হচ্ছে ভ্যান, অটোরিক্সাসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চালকদের।এই সড়কে চলাচলে প্রায়ই নষ্ট হচ্ছে তাদের যানবাহন। 

    immage 1000 04 1

    সড়ক সম্প্রসারনে ব্যাক্তি মালিকানা জমি অধিগ্রহণ করে কাজ করার দাবী ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলোর।

    ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান, মাঈন উদ্দিন বাসীরে প্রজেক্ট ম্যানেজার আব্দুর রউফ বলেন, রাস্তার কাজ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে শেষ করতে দ্রুত করা হচ্ছে দাবী করেন এই কর্মকর্তা।

    গোপালগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাহিদ হোসেন জানান, বর্তমানে কাজের গতি সন্তোষজনক। ইতোমধ্যে ৬০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।তবে কাজ শুরু করতে দেরী এবং বেশ কয়েকটি স্থানে ভূমি অধিগ্রহণসহ নানান জটিলতায় কাজ থেমে ছিল।যে গতিতে কাজ চলছে তাতে আগামী জুনের মধ্যে রাস্তাটির কাজ শেষ করা সম্ভব হবে।

    যে গতিতে কাজ চলছে তাতে ৬’শ ১২ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা ব্যয়ে নির্মিতব্য আঞ্চলিক মহাসড়কটি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করা যাবে কিনা এ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন স্থানীয় জনগন।

    © এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
    / month
    placeholder text

    সম্পর্কিত আরও পড়ুন

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    - Advertisment -

    সর্বশেষ খবর

    জাতীয় সংসদ নির্বাচন

    নড়াইলে বিজয়ী ও পরাজিত প্রার্থীর পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন ; পূনরায় ভোট গ্রহনের দাবি

    নড়াইল সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে পরাজিত ও বিজয়ী প্রার্থী পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন করেছে। পরাজিত প্রার্থী তোফায়েল মাহমুদের অভিযোগ তাকে কারচুপির মাধ্যমে হারানো হয়েছে। তিনি...

    সারাদেশ

    কাশিয়ানীর গ্রাম থেকে নকল পন্যের কারখানা সন্ধান

    গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলার ফুকরা ইউনিয়নের ভূলবাড়িয়া গ্রাম থেকে নকল পন্যের কারখানার সন্ধান পাওয়া গেছে। আজ শনিবার (১৩ জুলাই)বিকেলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক মোঃ...

    রাজনীতি

    বঙ্গবন্ধুর রক্তের উত্তরাধিকার; এই গৌরব সমগ্র বাঙালি জাতির- বাংলাদেশ রাষ্ট্রের

    বাংলাদেশ রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা ও বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের লিগ্যাসি আজ পুরো পৃথিবীকে অবাক করেছে। তাঁর তৃতীয় প্রজন্ম টিউলিপ সিদ্দিক সারা বিশ্বের...
    - Advertisment -




    Recent Comments