শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Bookmark
0
মূলপাতানির্বাচন-২০২৪বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পাঁচ বাধা...

বাংলাদেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পাঁচ বাধা…

৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে আরও কিছু ষড়যন্ত্র বাধা আছে। এ ব্যাপারে সরকার, নির্বাচন কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট সকলকেই সতর্ক থাকতে হবে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মানবাধিকার দিবসের প্রতিবেদনে বাংলাদেশের ওপর কোন বিস্তার নিষেধাজ্ঞা বা অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেনি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, এর ফলে বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে সব শঙ্কার মেঘ কেটে গেল। এখন নির্বাচন নির্দিষ্ট সময়ে হওয়া নিয়ে কোন সংশয় নেই। কিন্তু রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের কেউ কেউ মনে করছেন, এখনও সব বাধা অতিক্রম হয়নি। ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে আরও কিছু ষড়যন্ত্র বাধা আছে। এ ব্যাপারে সরকার, নির্বাচন কমিশন এবং সংশ্লিষ্ট সকলকেই সতর্ক থাকতে হবে।

নির্বাচনের আগে পাঁচটি বাধাকে চিহ্নিত করেছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহল এবং এই বাধাগুলোর মধ্যে রয়েছে;

১. জাতীয় পার্টির থাকা না থাকা: জাতীয় পার্টির সঙ্গে নির্বাচনের আসন সমঝোতা নিয়ে আওয়ামী লীগ দর কষাকষি করছে এবং সেই দরকষাকষিতে জাতীয় পার্টি বুঝে গেছে যে, এবার নির্বাচনের জন্য তারা কত মূল্যবান? এজন্য তারা তাদের ইচ্ছেমতো করে আসন চাইছে। নানারকম শর্ত আরোপ করেছে। জাতীয় পার্টি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবে এমন প্রত্যাশা করছে আওয়ামী লিগ। কিন্তু জাতীয় পার্টির থাকা না থাকার ওপর নির্ভর করছে অনেক কিছুই। শেষ পর্যন্ত যদি জাতীয় পার্টি নির্বাচন থেকে সরে যায় তাহলে এই নির্বাচনকে গ্রহণযোগ্যতা দেওয়া কঠিন হবে। নির্বাচন করাটাও কঠিন হতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

২. ১৪ দলের শরিকদের অস্থিরতা: ১৪ দলের শরিকরাও ঝোপ বুঝে কোপ মারছে। তারাও মনে করছে যে, এখনই সুযোগ চাওয়া পাওয়ার। কারণ আওয়ামী লীগ শুধু স্বতন্ত্রদের নিয়ে নির্বাচন করতে পারবে না। আর এই কারণেই তাদের যোগ্যতার চেয়ে বেশি আসন দাবি করছে এবং এ নিয়ে তারা আওয়ামী লীগকে চাপ প্রয়োগ করছে। আর এই বাস্তবতায় শেষ পর্যন্ত যদি ১৪ দলের শরিকরাও নির্বাচন থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেয় তাহলেই নির্বাচন করা আওয়ামী লীগের জন্য কষ্টসাধ্য হয়ে পড়বে।

৩. ভোটার উপস্থিতি: এই নির্বাচনে যদি আসন সমঝোতা করা হয় যেভাবে জাতীয় পার্টি এবং ১৪ দলের শরিকরা চাইছে, তাহলে নির্বাচন নিয়ে ভোটারদের আগ্রহ উল্লেখযোগ্য হারে কমে যাবে। তখন নির্বাচনে ভোটার উপস্থিতি কম হবে এবং ভোটার উপস্থিতি কম হলে এই নির্বাচনের ব্যাপারে গ্রহণযোগ্যতা সংকট তৈরি হবে।

৪. স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বসিয়ে দেওয়া বা হুমকি দেওয়া: যদি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী এবং অন্যান্য দলের প্রার্থীরা স্বতন্ত্রদের বিরুদ্ধে নানারকম পদক্ষেপ গ্রহণ করে, যা ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে তাহলে নির্বাচন হওয়ার আগেই নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ হবে এবং শেষ পর্যন্ত নির্বাচন করাটা কষ্টসাধ্য হয়ে যাবে।

৫. নির্বাচনের আগে বিএনপির সন্ত্রাস ও সহিংসতা: বিএনপি এত দিন অপেক্ষায় ছিল যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কিছু একটা করে দেখাবে। কিন্তু সেই কিছু একটা হলো না। এখন হয়তো সব আশাহারা বিএনপি তাদের ইচ্ছামতো আন্দোলনের পরিকল্পনা নেবে। তারা সন্ত্রাস সহিংসতা করে সারা দেশে একটি বিশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করতে চাইবে। তখন নির্বাচনের আগে দেশে শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতি বিকৃত করার চেষ্টা করবে। তবে সেই চেষ্টা কতটুকু সফল হবে সে নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে।

© এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
/ month
placeholder text

সম্পর্কিত আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ খবর

জাতীয় সংসদ নির্বাচন

সারাদেশ

গোপালগঞ্জে আগুনে পুড়ে নারী নিহত

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে আগুনে পুড়ে স্বপ্না দাস(৪৮)নামে এক নারীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার(২৩ ফেব্রুয়ারী)দুপুরে উপজেলার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের ওড়াকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আগুনে পুড়ে মারা...

রাজনীতি

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

দেশের মানুষ যাতে স্বস্তিতে থাকতে পারে, সেজন্য নবনিযুক্ত মন্ত্রীদের আসন্ন পবিত্র রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ...
- Advertisment -




Recent Comments