খেলার মাঠ পেয়ে আনন্দিত ৩৩ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

Students of 33 schools are happy to have a playground

immage 1000 01 38

টুঙ্গিপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
আগে বিদ্যালয়ে আসতাম আর ক্লাস করে বাড়ি চলে যেতাম। মাঠ না থাকায় বন্ধুদের গিয়ে খেলতেও পারতাম না। এখন আমাদের খেলার মাঠ হওয়ায় বন্ধুদের সাথে মোড়গ লড়াই, ফুটবল, গোল্লাছুট, কানামাছি খেলতে পারি। তাই স্কুলে এসে পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধুলা করতে পেরে আমরা খুবই আনন্দ
কথা গুলো বলছিলো গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া উপজেলার নবুখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণীর শিক্ষার্থী হৃদয় মন্ডল। শুধু হৃদয়ই না পড়াশোনার পাশাপাশি খেলার পরিবেশ সৃষ্টি হওয়ায় আনন্দিত উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের ৩৩ টি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

immage 1000 02 18

গোপালপুর ইউনিয়নের রাখিলাবাড়ি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেনীর ছাত্র আকাশ মন্ডল বলেন, আগে আমাদের বিদ্যালয়ে কোন মাঠই ছিলো না। এর ফলে আমরা খেলাধুলা করতে পারতাম না। এখন মাঠ তৈরি হওয়ায় আমরা বিভিন্ন ধরনের খেলাধুলা করতে পারছি। এতে আমরা খুবই আনন্দিত।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সুত্রে জানা যায়, টুঙ্গিপাড়া উপজেলার অনেক বিদ্যালয়ে খেলার মাঠ ছিলো না। আর যেসব বিদ্যালয়ে মাঠ ছিলো সেগুলোও ছিলো খেলার অনুপযোগী। খেলাধুলার মাঠ ও পরিবেশ না থাকায় শারীরিক ও মানসিক বিকাশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছিলো উপজেলার কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। কিন্তু শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে ২০২০-২১ অর্থবছরে উপজেলার ২০ টি প্রাথমিক ও ১৩ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠ তৈরি ও সম্প্রসারণ করা হয়। ৩ কোটি ১১ লাখ ৪২ হাজার টাকা ব্যায়ে এসব মাঠ বালু দিয়ে ভরাট ও সম্প্রসারণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়। বালু ভরাটের পরে ওপরে মাটি দিয়ে খেলাধূলার উপযোগী করে তোলা হয়েছে। পরে  বিদ্যালয়ে   মাঠগুলো সংস্কারের মাধ্যমে খেলাধুলার উপযোগী করে গড়ে তোলা হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সুত্রে জানা যায়, টুঙ্গিপাড়া উপজেলার অনেক বিদ্যালয়ে খেলার মাঠ ছিলো না। আর যেসব বিদ্যালয়ে মাঠ ছিলো সেগুলোও ছিলো খেলার অনুপযোগী। খেলাধুলার মাঠ ও পরিবেশ না থাকায় শারীরিক ও মানসিক বিকাশ থেকে বঞ্চিত হচ্ছিল উপজেলার কয়েক হাজার শিক্ষার্থী। কিন্তু শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে ২০২০-২১ অর্থবছরে উপজেলার ২০ টি প্রাথমিক ও ১৩ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠ তৈরি ও সম্প্রসারণ করা হয়। ৩ কোটি ১১ লাখ ৪২ হাজার টাকা ব্যায়ে এসব মাঠ বালু দিয়ে ভরাট ও সম্প্রসারণ করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়। বালু ভরাটের পরে ওপরে মাটি দিয়ে খেলাধূলার উপযোগী করে তোলা হয়েছে। পরে  বিদ্যালয়ের মাঠ গুলো সংস্কারের মাধ্যমে খেলাধুলার উপযোগী করে গড়ে তোলা হয়েছে।

গোপালপুর রাখিলাবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হরিদাস বিশ্বাস বলেন, বিদ্যালয়টি নিচু জায়গায় হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই বিদ্যালয়ে পানি উঠে যেত। এছাড়া শিক্ষার্থীদের মাঠ না থাকায় খেলাধুলা করতে পারতো না।এ অবস্থায় পাঠদান করা গেলেও শিক্ষার্থীদের শারীরিক বিকাশ ঘটতো না। মাঠ তৈরির পর এখন শিক্ষার্থীরা খেলাধুলাও করতে পারছে আর বিদ্যালয়ে পানি উঠে পাঠদান ও ব্যাহত হবে না।


immage 1000 03 10

গোপালপুর রাখিলাবাড়ি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হরিদাস বিশ্বাস বলেন, বিদ্যালয়টি নিচু জায়গায় হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতেই বিদ্যালয়ে পানি উঠে যেতো। এছাড়া শিক্ষার্থীদের মাঠ না থাকায় খেলাধুলা করতে পারতো না। এঅবস্থায় পাঠদান করা গেলেও শিক্ষার্থীদের শারীরিক বিকাশ ঘটতো না। মাঠ তৈরির পর এখন শিক্ষার্থীরা খেলাধুলাও করতে পারছে আর বিদ্যালয়ে পানি উঠে পাঠদান ও ব্যাহত হবে না।

immage 1000 04 4

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী রাষ্টীয় সফরে টুঙ্গিপাড়া এসে জানতে পারেন অনেক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার কোন পরিবেশ নেই। তখন তিনি দ্রুত মাঠ তৈরি করে শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার উপযোগী করে তুলতে নির্দেশ দেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দের টাকা দিয়ে ৩৩ টি বিদ্যালয়ের মাঠ তৈরি ও সম্প্রসারণের কাজ শুরু হয়। খেলাধুলার মাঠ পেয়ে প্রতিটি বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ব্যাপক আনন্দিত।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আল মামুন বলেন, মানসম্মত শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের শারীরিক বিকাশ নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দ দিয়ে বিদ্যালয়ের মাঠ তৈরি ও সম্প্রসারণ করা হয়েছে। এতে দৈনন্দিন পাঠক্রমের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। শিক্ষার্থীদের শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলার মাঠ অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here