শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২৪
Bookmark
0
মূলপাতানির্বাচন-২০২৪আওয়ামী লীগের শঙ্কা জাতীয় পার্টি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবে না?

আওয়ামী লীগের শঙ্কা জাতীয় পার্টি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে থাকবে না?

যে কারণে জাতীয় পার্টি যদি শেষ পর্যন্ত নাও থাকে তাহলেও অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে কোনো বাধা সৃষ্টি হবে না।

আওয়ামী লীগ কোনোভাবে স্বতন্ত্র প্রার্থীদের দায়িত্ব নিতে চায় না। কৌশলগত কারণেই হোক আর আইনগত দিক থেকেই হোক স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ব্যাপারে আওয়ামী লীগের মধ্যে এক ধরনের উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং তারা যেন নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত থাকে তার নিশ্চিত করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। এর ফলে শেষ মুহূর্তে জাতীয় পার্টি নির্বাচন থেকে সরে যেতে পারে এমন শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

গতকাল আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে আওয়ামী লীগের সিনিয়র কয়েকজন নেতার সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাড়াও দলের শীর্ষ বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। আজও একই ধারাবাহিকতায় সন্ধ্যায় গণভবনে নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন। এসব বৈঠকে আওয়ামী লীগের নীতি নির্ধারক মহল থেকে শঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে যে, জাতীয় পার্টি এখন যতই মিষ্টি মিষ্টি কথা বলুক বা নির্বাচনের ব্যাপারে আগ্রহ দেখাক শেষ পর্যন্ত হয়তো তারা নির্বাচনে নাও থাকতে পারে।

১৭ ডিসেম্বর জাতীয় পার্টি আকস্মিকভাবে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিতে পারে। এর কারণ হিসেবে আওয়ামী লীগ মনে করছে, সারাদেশে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক অবস্থা অত্যন্ত দুর্বল। তাছাড়া এবার নির্বাচনে কোন রকম পক্ষপাতপূর্ণ হবে না। অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে। সর্বোপরি স্বতন্ত্র প্রার্থীদেরকে আওয়ামী লীগ কোন ভাবে সরিয়ে দেবে না। যার ফলশ্রুতিতে জাতীয় পার্টির বড় ধরনের ভরাডুবি হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

তবে কোনো কোনো রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মনে করছেন যে, জাতীয় পার্টির সঙ্গে কোনো কোনো পশ্চিমা দেশের গোপন আঁতাত হতে পারে, যে আঁতাতের ফলশ্রুতিতে তারা হয়তো তাদেরকে খুশি করার জন্য নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াতে পারে। তাছাড়া লন্ডনে পলাতক তারেক জিয়াও জাতীয় পার্টির বিভিন্ন মহলের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন এবং সেই যোগাযোগের সূত্র ধরে জাতীয় পার্টিকে নির্বাচন থেকে সরে আসার জন্য বড় ধরনের টোপ দেওয়া হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এবার নির্বাচনের যে পদ্ধতি বা নির্বাচন যে আইন, সেখানে দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের যদি শেষ পর্যন্ত প্রতীক না দেওয়া হয়, প্রতীক বরাদ্দ সংক্রান্ত চিঠি যে দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের দেবেন, সেটি না দেওয়া হলেও ওই প্রার্থীর মনোনয়ন আপনাআপনি বাতিল হয়ে যাবে এবং তিনি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন না বলে ধরে নেওয়া হবে। এরকম অবস্থাতে জাতীয় পার্টির চেয়ারপার্সন যদি কাউকে দলীয় প্রতীক বরাদ্দ না করে তাহলে পরে জাতীয় পার্টি নির্বাচন থেকে দূরে চলে যাবে। এ রকম একটি বাস্তবতায় জাতীয় পার্টি নির্বাচনে থাকা না থাকা নিয়ে এক ধরনের সংশয় সৃষ্টি হয়েছে।

তবে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, এটা নিয়ে আমি উদ্বিগ্ন নয়। কারণ এবার নির্বাচনে ইতিমধ্যেই আমেজ তৈরি হয়েছে। যে কারণে জাতীয় পার্টি যদি শেষ পর্যন্ত নাও থাকে তাহলেও অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনে কোনো বাধা সৃষ্টি হবে না। বরং নির্বাচন হবে উৎসবমুখর। যারা আওয়ামী লীগের প্রার্থী, অন্য দলের প্রার্থী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলিয়ে নির্বাচনে একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

© এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
/ month
placeholder text

সম্পর্কিত আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ খবর

জাতীয় সংসদ নির্বাচন

সারাদেশ

গোপালগঞ্জে আগুনে পুড়ে নারী নিহত

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে আগুনে পুড়ে স্বপ্না দাস(৪৮)নামে এক নারীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। আজ শুক্রবার(২৩ ফেব্রুয়ারী)দুপুরে উপজেলার ওড়াকান্দি ইউনিয়নের ওড়াকান্দি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আগুনে পুড়ে মারা...

রাজনীতি

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

দেশের মানুষ যাতে স্বস্তিতে থাকতে পারে, সেজন্য নবনিযুক্ত মন্ত্রীদের আসন্ন পবিত্র রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ...
- Advertisment -




Recent Comments