চিতই পিঠায় ৩০ রকমের ভর্তা

30 types of fillings in chitai pitha

immage 1000 01 31

কোটালীপাড়া (গোপালগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ
শীতের আমেজ শুরু হতেই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের ফুটপাতে পিঠা বিক্রির ধুম পড়েছে। নানা বয়সের মানুষ বিভিন্ন ধরণের পিঠা তৈরী করে ভোজন রসিকদের কাছে বিক্রি করছে। তবে সবচেয়ে বেশী বিক্রি হচ্ছে চিতই পিঠা এবং বিভিন্ন রকমের ভর্তা।

প্রতিদিন দুপুরের পর থেকে পিঠা বিক্রি শুরু হলেও সন্ধ্যার পরে এসব পিঠার দোকানে ভোজন রসিকদের প্রচুর ভীর লক্ষ করা যায়। যে যার পছন্দের ভর্তা দিয়ে দাড়িয়ে দাড়িয়ে খায় এই চিতই পিঠা। কেউবা আবার আপন জনদের জন্য কিনে নিয়ে যায়।

immage 1000 02 15

উপজেলার ঘাঘর বাজারের মহুয়ার মোড়ে পিঠা বিক্রি করেন মোঃ শুভ শেখ ও তার ভাই মোঃ আলী শেখ। এখানে এই দুই ভাই ৫টাকা করে এক একটি চিতই পিঠা বিক্রি করেন। তার সাথে ফ্রি পাওয়া যায় ৩০ রকমের ভর্তা।

মোঃ শুভ শেখ বলেন, করোনার আগে আমাদের ঢাকায় পিঠার দোকান ছিল। করোনার সময় লকডাউন দিলে আমরা বাড়ি চলে আসি। বাড়ি এসে আমরা দুই ভাই এই মহুয়ার মোড়ে প্রতিদিন দুপুরের পর থেকে পিঠা বিক্রি শুরু করি। গভীর রাত পর্যন্ত চলে আমার এই পিঠা বিক্রি। নানা ধরণের পিঠা তৈরী করলেও সব চেয়ে বেশী চলে চিতই পিঠা এবং ভর্তা। আমাদের এখানে রয়েছে চিংড়ি ভর্তা, চ্যাপা শুটকি ভর্তা, পাবদা শুকটি ভর্তা, পুটি শুটকি ভর্তা, টাকি শুটকি ভর্তা, লইট্টা শুটকি ভর্তা, লোনা ইলিশ ভর্তা, কাচকি শুটকি ভর্তা, ডাল ভর্তা, বাদাম ভর্তা, সরিষা ভর্তা, রসুন ভর্তা, কাঁচা মরিচ ভর্তা, শুকনা মরিচ ভর্তা, চমেটো ভর্তা, ধুনেপাতা ভর্তা, কালিজিরা ভর্তা, আলু ভর্তা, মিক্স ভর্তাসহ প্রায় ৩০ প্রকারের ভর্তা।

immage 1000 03 9

মোঃ আলী শেখ বলেন, আমরা প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ কেজি চালের গুড়ি দিয়ে চিতই পিঠা বানিয়ে এখানে বিক্রি করি। এতে আমাদের প্রায় ১৫শ থেকে ২হাজার টাকা লাভ হয়। এই শীতের মৌসুমে আমরা শুধু এখানেই পিঠা বিক্রি করিনা। বিভিন্ন সংগঠন থেকে পিকনিকে গেলে তারা পিঠা খাওয়ার জন্য আমাদেরকে সাথে নিয়ে যায়। তখন তারা আমাদেরকে যে ধরণের পিঠা তৈরী করে দিতে বলে আমরা সেই ধরণের পিঠা তৈরী করে দেই। আমাদের প্রায় শতাধিক প্রকার পিঠা তৈরীর অভিজ্ঞতা রয়েছে।

তারাশী গ্রামের আনন্দ দাস বলেন, এখানে প্রায় ৩০ প্রকারের ভর্তা দিয়ে চিতই পিঠা খাওয়া যায়। এক এক ধরণের ভর্তার স্বাদ এক এক প্রকার। দামও খুব কম। তাই আমি সময় পেলেই সন্ধ্যায় এখানে ভর্তা দিয়ে চিতই পিঠা খেতে আসি।

পিঠা খেতে আসা রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি এ উপজেলায় একটি বেসরকারি সংস্থায় চাকুরী করি। পরিবারের কেহ এখানে থাকে না। তাই বাসায় পিঠা তৈরী করে খাওয়ার সুযোগ হয় না। এ জন্য যখন পিঠা খেতে মন চায় তখনই এখানে চলে আসি। এখানের চিতই পিঠা ও ভর্তা খুবই সুস্বাদু এবং স্বাস্থ্যসম্মত।

immage 1000 04 3

ঘাঘর বাজারের ব্যবসায়ী মনিরুজ্জামান বলেন, গতকাল সন্ধ্যায় হঠাৎ করে বাসায় কয়েকজন মেহমান এসেছিল। তাদেরকে এখান থেকে পিঠা নিয়ে আপ্যায়ন করলাম। তারা এই পিঠা খেয়ে খুব খুশী হয়েছে।
উপজেলা সদরের পিঠা বিক্রেতা জমিলা খাতুন বলেন, আমরা কয়েকজন উপজেলা সদরে ফুটপাতে বসে খোলা আকাশের নিচে গভীর রাত পর্যন্ত পিঠা বিক্রি করি। আমাদেরকে সরকারি ভাবে স্থায়ী ভাবে বসার একটু জায়গা করে দিলে আমরা উপকৃত হতাম। #

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here