বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৮, ২০২৪
Bookmark
0
মূলপাতাগোপালগঞ্জ সংবাদনতুন প্রজন্মের জন্য নিরাপদ ও বাসযোগ্য রাষ্ট্র গঠনে কাজ করে যাচ্ছে সরকার-প্রধানমন্ত্রী

নতুন প্রজন্মের জন্য নিরাপদ ও বাসযোগ্য রাষ্ট্র গঠনে কাজ করে যাচ্ছে সরকার-প্রধানমন্ত্রী

গোপালগঞ্জের ‍টুঙ্গিপাড়ায় জাতীয় শিশু দিবসে শিশুদের উদ্দেশ্যে দেয়া বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী জানান, নতুন প্রজন্মের জন্য নিরাপদ ও বাসযোগ্য রাষ্ট্র গঠনে কাজ করে যাচ্ছে তার সরকার। তিনি বলেন, আজকের শিশুরা ডিজিটাল যুগে।কাজেই ডিজিটাল শিক্ষার ব্যবস্থা আমরা করে দিয়েছি। এখন আমাদেরকে স্মার্ট বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ দেখতে হবে। এই শিশুরাই তো একদিন প্রযুক্তি ব্যবহার শিখবে।যে স্মার্ট বাংলাদেশ সেই স্মার্ট বাংলাদেশ অর্থাৎ উন্নত সমৃদ্ধ দেশ গড়ে তোলার মুল কারিগর শিশুরাই নেতৃত্ব দিবে।

শেখ হাসিনা বলেন, শিশুদের দিকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সব সময় নজর ছিলো।দুঃস্থ শিশু, একেবারে দরিদ্র শিশু, অসহায় অথবা এতিম তাদের পুর্নবাসনের জন্য তিনি শিশু আত্নরক্ষা সেন্টার প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।

immage 1000 02 14

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে ২১ বছর পরে আমরা সরকার গঠন করে শিশুদের সুরক্ষা দেয়ার পদক্ষেপ গ্রহন করি। ২০০০ সালে নারী শিশু নির‌্যাতন দমন আইন করে শিশুদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করি। ২০১০ সালে জাতীয় শিশু নীতি। আমরা শিশুদের উপযুক্ত শিক্ষা দেয়ার জন্য ২ কিলোমিটারের মধ্যে প্রাইমারি স্কুল করে দিয়েছি। আজকে আমাদের দেশের ৯৮ ভাগ শিশু স্কুলে যায়। আমরা কারিগরি শিক্ষার প্রতি গুরুত্ব দিয়েছি।স্কুল গুলোতে আমরা কম্পিউটার ল্যাব করে দিচ্ছি।

ফিলিস্তিনে হামলার বিষয়ে অনেক সংগঠন চুপ থাকায় ক্ষোভ জানান শেখ হাসনা।তিনি বলেন, আজকে বিশ্বব্যাপী আমরা দেখি অনেকে শিশু অধিকারের কথা বলে, শিশু শিক্ষার কথা বলে, মানবাধিকারের কথা বলে আর আমরা দেখি পাশাপাশি একটা দ্বিমুখি কার‌্যক্রম।গাজায় শিশুদের উপর যখন বোমা ফেলা হয় হত্যা করা হয়, হাসপাতালে বোমা ফেলা হয় ফিলিস্তিনিদের উপর যখন আক্রমন করা হয় তখন আমি জানি না এই মানবাধিকার সংস্থাগুলো কোথায় থাকে। তাদের সেই মানবাধিকার বোধটা কোথায় থাকে।

তিনি বলেন, আমরা যুদ্ধ চাই না, আমরা শান্তি চাই। ১৯৭১ সালে আমরা যুদ্ধের ভয়বহতা দেখেছি।আমরা সব সময় নির‌্যাতিত মানুষের পাশে আছি।তাই তো আমাদের প্রতিবেশি দেশ মিয়ামারে মানুষের উপর আত্যাচার হলো, শিশুরা আহতাবস্থায় যখন আশ্রয় চাইলো, আমরা তখন মানবিক কারণে আশ্রয় দিয়েছি। কিন্তু আজকে গাজার শিশুদের যে অবস্থা আমরা দেখছি আমি জানি না বিশ্ববিবেক কেন নাড়া দেয়না।

immage 1000 03 6

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪ তম জন্মবার্ষিকী। এই দিনটাকে আমরা শিশু দিবস হিসেবে পালন করি। জাতির পিতা আমাদেরকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছেন।একটি দেশ দিয়েছেন। আত্মপরিচয় এনে দিয়েছেন। জাতির পিতা এদেশের প্রতিটি মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে চেয়েছেন। তাই তাঁর জীবনের সমস্ত সুখ সুবিধা বিসর্জন দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য সংগ্রাম করেছিলেন যাতে বাংলাদেশের মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা এবং উন্নত জীবন পায়।

শিশুদের সুরক্ষার জন্য তিনি শিশু আইন প্রণয়ন করে গেছেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, কোন শিশু যেন অবহেলিত না থাকে। জাতির পিতার যে আকাঙ্খা ছিলো দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তুলবেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে তিনি অর্থনৈতিক উন্নয়নের পথে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। আর সেই সময়ই আঘাতটা এলো। এরপর আর বাংলাদেশের মানুষের ভবিষ্যৎ কোন সম্ভবনা ছিলো না।

এর আগে সকালে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০৪ তম জন্মবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। সকাল ১০টা ৩৮ মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন ও পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় তিন বাহিনীর একটি চৌকসদল রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীকে অনার গার্ড প্রদান করেন। পরে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট নিহত বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের রূহের মাগফেরাত কামনায় ফাতেহাপাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী দলীয়ভাবে নেতাকর্মিদের সঙ্গে নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

এ সময় ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক এমপি, বেসামরিক বিমান ও পর‌্যটন মন্ত্রী মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ এমপি, আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাসিম, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মাহাবুব আলী খান, সাধারন সম্পাদক জিএম সাহাব উদ্দিন আজম সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় কর্মসূচী শিশু সমাবেশে যোগ দেন। বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের আয়োজনে ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় অনুষ্ঠিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমা মোবারেক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখবেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী সিমিন হোসেন(রিমি)।অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করে জেলা শহরের মালেকা একাডেমীর ৩য় শ্রেণীর শিক্ষার্থী পিয়াসা জামিল।

এরপর প্রধানমন্ত্রী সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার প্রদান করেন। এসময় অসচ্ছল, মেধাবী শিশু শিক্ষার্থীদের মধ্যে আর্থিক অনুদান বিতরণ করেন। এরপর প্রধানমন্ত্রী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ফটোসেশনে অংশ নেন।পরে প্রধানমন্ত্রী বইমেলা ও সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের আঁকা চিত্র প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন।

বিকেলে প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে ঢাকার উদ্দেশ্যে টুঙ্গিপাড়া ত্যাগ করন।

© এই নিউজ পোর্টালে প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।
/ month
placeholder text

সম্পর্কিত আরও পড়ুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ খবর

জাতীয় সংসদ নির্বাচন

সারাদেশ

রাজনীতি

রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

দেশের মানুষ যাতে স্বস্তিতে থাকতে পারে, সেজন্য নবনিযুক্ত মন্ত্রীদের আসন্ন পবিত্র রমজানে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে রাখার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ...
- Advertisment -




Recent Comments